সকাল ১১:০০ টা থেকে শুরু হয় স্মৃতিচারণ পর্ব। এ পর্বটি বিভিনড়ব উপ পর্বে বিভক্ত ছিল যার মধ্যে ‘নাট্যকলা ও অভিনয়’ পর্বে সভাপতিত্ব করেন বিশিষ্ট নাট্য ব্যক্তিত্ব আবদুল আজিজ, সঞ্চালনায় ছিলেন অধ্যাপক মিজানুর রহমান খান। ‘সমাজ-সংস্কৃতি ছাত্র রাজনীতি’ পর্বটি পরিচালনা করেন আজিজুর রহমান আজু। প্রধান অতিথি ছিলেন হামিদা বানু শোভা প্রাক্তন এম. পি.। এ পর্বে বক্তব্য প্রদান করেন সেলিনা জাহান লিটা, এম. পি। ‘কবিতা-গল্প লিটল ম্যাগাজিন প্রকাশনা’ পর্বে সভাপতিত্ব করেন ড. অনীক মাহমুদ, প্রধান অতিথি ছিলেন কবি রুহুল আমীন প্রামাণিক ও সঞ্চালনা করেন মোল্লাহ আমজাদ হোসেন।

২:৩০ টায় ‘স্মৃতিময় প্রীতিময় শিক্ষকগণ’ পর্বে সভাপতিত্ব করেন এলিনা খান, সঞ্চালক ছিলেন কবিতা গোস্বামী। ‘কবিতা কথা ও কবি কন্ঠে কবিতা’ পর্বে সভাপতিত্ব করেন কবি তারিক-উল ইসলাম। সঞ্চালক ছিলেন ড. আমিনুর রহমান সুলতান। বিকেল ৫:৩০ টায় ‘বিভাগীয় সাহিত্য ও সংস্কৃতি চর্চা’ পর্বে সভাপতিত্ব করেন বাংলা বিভাগের বর্তমান চেয়ারম্যান ড. অমৃত লাল বালা এবং সঞ্চালনায় ছিলেন প্রফেসর শামীমা হামিদ। সময়ের স্বল্পতার জন্য ব্যর্থ যে প্রেম, ‘সংগীত ও নৃত্যকলা’ এবং ‘জুটি জুটি: কথা বলে যেই প্রেম’ নির্ধারিত এ পর্ব তিনটি অনুষ্ঠিত হয়নি। তবে সারাদিন ধরে স্মৃতিচারণ পর্বগুলো প্রতিটি সদস্য প্রাণভরে উপভোগ করেছেন।

Post Comment